অনলাইন থেকে ইনকাম করবেন এবং ব্যবহার।(How to Online Control Us)

বর্তমানে আমাদের বিশ্বটা কতটা অনলাইনমুখী হয়েছে তা বলার প্রয়োজনবোধ করছি না।

কেননা আজ সবাই জানে ভালো ভাবে। বিশ্বের এই উন্নতির সময়ে সব দেশের মত আমাদের বাংলাদেশ কোনোভাবেই পিছিয়ে নেই। অনলাইন প্ল্যাটফর্মটা এতটাই বিশাল এবং বিস্তার লাভ করেছে যার ভূমিকা আর ব্যাখ্যা সারাদিন লিখলেও শেষ হবেনা।অনলাইন এবং অফলাইনের পার্থক্য রয়েছে।

অনলাইন কিভাবে আমাদের কন্ট্রল করছে?

এই প্রশ্নটা সাধারণত চিন্তা করা অবাক কিছুনা। স্বাভাবিক এই প্রশ্নটা আসতেই পারে। কিভাবে অনলাইন আমাদের কন্ট্রল করছে। আমাদের প্রথমে বুঝতে হবে অনলাইন বিষয়টি আসোলে কী। এটি এমন একটি মাধ্যম যার মাধ্যমে এখন পুরো বিশ্বকে হাতের মুঠোয় নিয়ে আসা সম্ভব হচ্ছে। এটি আমাদের দৈন্দিন জীবনের বিশাল একটা অংশ জুড়ে আছে।সহজ ভাবে বলতে গেলে অনলাইন ছাড়া বর্তমান বিশ্ব চিন্তা করা অসম্ভব। ব্যবসা,চাকরী,পড়াশোনা,যোগাযোগ এরকম প্রত্যেকটা সেক্টরে অনলাইন পুরোপুরিভাবে সম্পৃক্ত।অনলাইন ইনকাম সবার কাছে সহজ।

টেকনোলজির সাথে অনলাইনের সম্পর্ক কী?

Day by Day World is grow. যা আমাদের জন্যে কল্যানকর। আমরা দেখতে পাচ্ছি কিভাবে বিশ্ব টেকনোলজি এবং অনলাইনের সহযোগিতায় এগিয়ে যাচ্ছে দিনের পর দিন। যা সম্ভব হচ্ছে দুটির সমন্বয়ে। এদুটির কোনোটিরই সাফল্য একটা ছাড়া অন্যটা নিয়ে চিন্তা করা সম্ভব না।

ব্যবসায় কতটা গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখে?

একটু ভালো ভাবে লক্ষ্য করলেই দেখা যায়। বর্তমানে ব্যবসা প্রতিষ্টান পরিচালনায় অনলাইন কতটা মূখ্য ভুমিকা পালন করছে। আগে একটা সময়ে মানুষ বিভিন্ন শপ,দোকান খোলে নিজেদের পণ্য বিক্রি করতো।এখন আধুনিকতার ছোঁয়ায় অনলাইনেই নিজেদের পণ্য বিক্রি করতে পারছে সহজে। যা সত্যি ব্যবসার উন্নতির একটা ধরন।

অনলাইন ইনকাম

চাকরী ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয়তা কতটুকু?

যেহেতু এই প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে পুরো অর্থনৈতিক কাঠামো এবং কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হচ্ছে,সেহেতু চাকরীতেও এটির গুরুত্ব অপরিসীম। বর্তমান সময়ে বেশিরভাগ চাকরী প্রতিষ্টান অনলাইন নির্ভর। নিজেদের হিসেব-নিকেশ ছাড়াও কোম্পানির অনেক কাজই অনলাইনের মাধমেই সম্পন্ন করা হয়। যার জন্যে চাকরীর ক্ষেত্রেও এটির ভূমিকা অপরিসীম।

অনলাইন ইনকাম

Study বা পড়াশোনায় এর গুরুত্ব কতটুকু?

পুরো বিশ্বে এখন অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্টান আছে। যেখানের পুরো শিক্ষা ব্যবস্থা অনলাইন প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমেই সম্পন্ন করা হয়। সবকিছুই অনলাইনমুখি হওয়ায় শিক্ষা ক্ষেত্রেও এর ভূমিকা রয়েছে। এছাড়াও বর্তমানে করোনা ভাইরাসের জন্যে স্কুল/কলেজ বন্ধ। যার কারনে ঘরে বসেই শিক্ষার্থীরা সহজেই Online Live Class করতে পারছে। যা সত্যিই দারুন। অনলাইনে ইনকাম করছে লাখো শিক্ষার্থী।

যোগাযোগ ব্যবস্থায় কতটুকু কার্যকারী?

ফেইসবুক/টুইটার/ইন্সগ্রাম/ওয়াটসেপ ছাড়াও অনেক সোশ্যাল এপ্স বা ওয়েবসাইট আছে। যেগুলা ব্যবহারের মাধ্যমে এখন মানুষের ব্যবস্থা হয়েছে আরো সহজ। চাইলেই এখন একজন অন্যজনের সাথে সহজেই যোগাযোগ করতে পারছে। সময় সাপেক্ষে Online এবং Offline দুটিই বৈশ্বিক অগ্রগতিতে ভূমিকা রেখেছে। অফলাইনে অনেক বিজনেজ হচ্ছে। এখনো অনেক দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়ন না হওয়ায় অফলাইন স্কুল/কলেজ ব্যবস্থা।

অনলাইন এবং অফলাইনের মধ্যে পার্থক্য কিরকম?

দুটুই প্রত্যেক ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ন। সময়,স্থান, কাল এর উপর নির্ভর করেই দুটোই চলছে। বর্তমান Information And Communication Technology এর সময়ে যদিও বেশিরভাগ সময়ে Online কেই বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। তবুও অফলাইন কোনোভাবেই পিছিয়ে নেই। অনলাইন ইনকামের সুবিধা বেশি।

কী কী সমস্যা দেখা দেয় অনলাইন বিজনেসে?

ব্যবসার দিক থেকে বর্তমানে বহির্বিশ্ব অনেক এগিয়ে গেছে এর ব্যবহারের মাধ্যমে। অনেক ভাবেই এখন অনলাইনে প্রোডাক্ট বিক্রি করা হয়। যার মাধ্যমে মানুষ তার পছন্দের Product অনলাইনে পছন্দ করে, এবং বিক্রেতা সেটি ক্রেতার কাছে পৌছে দেয়। এটি উন্নত সেবার মান উন্নয়নে ব্যবসার অন্নতম ভালো দিক। তবে রয়েছে কিছু সমস্যা। যে সমস্যা গুলো দেখা দেয়,

  • সঠিক পণ্য না পাওয়া।
  • পণ্যের গুণগত মান ভালো না হওয়া।
  • সঠিক সময়ে পৌছে না দেয়া।
  • পণ্যের লোকাল শপ থেকে দাম বেশি নেয়া।
  • Product Replacement সুবিধা খুব কম থাকা।

এরকম কিছু Basic সমস্যার জন্যে অনেক ক্ষেত্রেই অনলাইনের ব্যবসাকে অনেকে নিতে চায়না।

প্রতারনার অন্যতম মাধ্যম অনলাইন?

সবকিছুতেই Negative – Positives ভালোমন্দ থাকবেই। এটাই স্বাভাবিক। তবে বর্তমানে কিছু দুষ্টচক্রের কারনে অনলাইন প্ল্যাটফর্ম হয়ে উঠেছে প্রতারণার অন্যতম প্ল্যাটফর্ম। খুব সহজেই ডিভাইসের আড়ালে থাকা চেহারার মানুষের প্রতারণার স্বীকার হচ্ছে লাখো মানুষ।মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখলাখ টাকা এবং গুরুত্বপূর্ন তথ্য। অনলাইন ব্যবহার করে প্রতারণার কিছু মাধ্যম,

অনলাইন ইনকাম

১। চাকরীর অফার দেয়া।

অনেক লোভনীয় এবং মোটা অংকের বেতনের চাকরীর অফার দেয়া হয়। তারপর অনেকেই যখন Apply করে এবং Apply Fee দেয় তখন তারা উধাও হয়ে যায়। আমাদের দেশেই এরকম অনেক চক্র রয়েছে। আইনি ব্যবস্থায় নেয়াও হয়েছে অনেক প্রতারককে।

২। বিশাল মূল্য ছাড় দেয়ার অফার।

অনেক সময় বিভিন্ন ভুয়া প্রতিষ্টান কোম্পানি বিশাল ছাড় বা Discount এর অফার দেখিয়ে মানুষের সাথে প্রতারণা করে। তারা আসল পণ্য না দিয়ে দুনাম্বার পণ্য দেয়। তাদের সঠিক কোনো ঠিকানা না থাকায় তাদের আইনের আওতায় আনতেও পারা যায়না।

৩। দারুন ইনকামের সুযোগ।

এরকম প্রতারক চক্র ইদানিং অনলাইনে সবচেয়ে বেশি আলোচিত। সাধারন মানুষকে এরা টার্গেট করে। তারপর তাদের কে অনলাইনে ইনকাম করা লোভ দেখায়। মোটা অংকের Investment দাবী করে। Investment এর টাকা দিয়ে দিলে তারা উধাও হয়ে যায়। অনেক বেকার ছেলেরা অনলাইনে ইনকামের লোভের কারনে এরকম প্রতারকদের খপ্পরে পড়ে সর্বহারা হয়ে থাকে। অনলাইন ইনকাম এর ব্যবস্থা করা।

নারীদের জন্যে অনলাইন কতটুকু নিরাপদ?

নারীদের নিরাপত্তার ব্যাপারটি নিয়ে অনলাইনের সব প্ল্যাটফর্ম অনেক দিন থেকেই চেষ্টা করে যাচ্ছে। নারী Secuirity Strong
করার জন্যে সব দেশ কাজ করছে। গভেষনায় দেখা যায় অনেক নারীরাই অনলাইনে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মাধ্যমে সমস্যার সম্মুকিন হয়ে থাকে। বিভিন্ন সময়ে নারীরা হ্যারাজম্যান্টের স্বীকার হয়। নারীদের সুরক্ষার জন্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে। Profile Lock, Face Recognition ছাড়াও অনেক আপডেট নিয়ে আসছে নারী নিরাপত্তার জন্যে।

Girlls Sad

বেশিরভাগ সময় এখানে ব্যয় করা কতটা ভালো?

আমরা জানি সব জিনিসের ভালো খারাপ দিক রয়েছে। সে হিসেবে অনলাইনে বেশি সময় ব্যয় করাটা অবশ্যই ক্ষতির কারন। নিজের যতটুকু প্রয়োজন বা কাজ ততটুকু সময়ই শুধু ব্যয় করা উচিৎ। অতিরিক্ত সময় এখানে ব্যয় করার মাধ্যমে আমাদের শরীরের যুকি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই অবশ্যই প্রয়োজনের বেশি সময় কোনো ভাবেই ব্যয় করা যাবেনা। অনলাইনে এডিক্টেড তাদের জন্যে অনলাইন ব্যবহার কমান

তথ্য ও প্রযুক্তি ব্যবহার আমাদের জন্যে আশির্বাদ সরূপ?

অবশ্যই এখানে হ্যাঁ বলা যায়। Information And Communication Technology আমাদের অর্গযাত্রার বাহক। তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে আমরা বিশ্বকে হাতের মুঠোয় পেতে সক্ষম হয়েছি। দিনের পর দিন আমরা আরো বেশি এগিয়ে যাচ্ছি। যা আমাদের জন্যে অবশ্যই কল্যাণকর। অনলাইন একটা বিশাল প্ল্যাটফর্ম। এখানে আমরা স্বাধিন ভাবে নিজেদের উপস্থাপন করতে পারি, নিজের কাজ করতে পারি।

যা আমাদের কাজকে সহজ করে দিয়েছে আরো। আজ থেকে কয়েক বছর আগেও যেখানে অন্য শহরের সাথে যোগাযোগ করতে অনেক সমস্যা ছিলো, আজ সেখানেই এক দেশ থেকে অন্য দেশে সহজেই যোগাযোগ করতে সক্ষম হচ্ছি। পুরোটাই সক্ষম হয়েছে অনলাইনের সাহায্যে। ধীরে ধীরে এটি মানুষের আরো কাছে আসছে।

আরো সহজ হচ্ছে ব্যবহার। মানুষ নিজেদের ব্যবসাকে আরো প্রসারিত করছে। শিক্ষার্থীরা তাদের ক্লাস করতে পারছে।এছাড়াও অনলাইন থেকে অনেক বেকার ছেলে মেয়েরা ইনকাম করতে পারছে। নিজেদের মেধা বিকাশের মাধ্যমে।

Leave a Comment